1. nasiralam4998@gmail.com : admi2017 :
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

সহজ ম্যাচ কঠিন করে বাংলাদেশের শ্বাসরুদ্ধকর জয়

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৮ জুন, ২০২৪
  • ৩৩ বার

শ্রীলঙ্কা: ১২৪/৯ (২০ ওভার)

বাংলাদেশ: ১২৫/৮ (১৯ ওভার) 

ফল: বাংলাদেশ ২ উইকেটে জয়ী। 

সহজ ম্যাচ কঠিন করে ২ উইকেটে জিতলো বাংলাদেশ। ১২ বলে প্রয়োজন ছিল ১১। শানাকাকে ১৯তম ওভারের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে     নিজেদের নাগালে নিয়ে আসেন মাহমুদউল্লাহ। পরের বলে সিঙ্গেল নেন। এক ডট দিয়ে তানজীম আবার মাহমুদউল্লাহকে স্ট্রাইক দেন। পঞ্চম বল ডট দেন, শেষ বলে শর্ট করেন শানাকা। বল অনেক উপরে দিয়ে গেলেও মাহমুদউল্লাহ ব্যাট চালান, আউটের আবেদন করে রিভিউ নেয় শ্রীলঙ্কা। কিন্তু লাভ হয়নি উলটো ওয়াইড হয়। এবার মাহমুদউল্লাহ মিড অফে খেলে ভোঁ দৌড় দেন, অপেক্ষা করেননি পরের ওভারের, ওভার থ্রো মিস হলে নিয়ে নেন ম্যাচজয়ী রানও। ৬ বল হাতে রেখে জয় পায় বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহ ১৬ ও তানজীম ১ রানে অপরাজিত ছিলেন। সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন তাওহীদ। ৩৬ রান করেন লিটন। লঙ্কানদের হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন তুষারা। ২২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন রিশাদ।

৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ভীষণ চাপে বাংলাদেশ

পাথিরানা শর্ট বল বেরিয়ে যাচ্ছিল অফ দিয়ে, সাকিব ধৈর্য ধরতে পারেননি। কাট করে ধরা পড়েন ডিপ থার্ড অঞ্চলে। ১৪ বলে ৮ রান করেন সাকিব। পরের ওভারে সাকিবের মতো একই কাজ করেন রিশাদ। জায়গা থেকে সরে মারতে গিয়ে বোল্ড হন তুষারার বলে। পরের বলে তাসকিন মাঠে এসেই এলবিডব্লিউ হন। ৪ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারিয়ে ভীষণ চাপে বাংলাদেশ। মাত্র ১৮ রনা দিয়ে ৪ উইকেট নেন তুষারা।  ১২ বলে প্রয়োজন ১১ রান। একমাত্র ভরসা মাহমুদউল্লাহ। তার সঙ্গী তানজীম।

লিটনের বিদায়ের পর বাংলাদেশের ১০০

শুরুর ধাক্কা সামলে প্রতিরোধ গড়তে দারুণ ভূমিকা রাখেন লিটন। শান্তর সঙ্গে জুটি লম্বা হয়নি, তবে পুষিয়ে দিয়েছেন তাওহীদের সঙ্গে। ধীরে গতিতে খেললেও সুযোগ পেলেই হাঁকিয়েছেন চার-ছয়। তবে বাংলাদেশের ম্যাচ শেষ করে আসতে পারেননি। হাসারাঙ্গার ঘূর্ণিতে পরাস্ত হয়ে ফেরেন সাজঘরে। ২ চার ও ১ ছয়ে ৩৮ বলে ৩৬ রান করেন লিটন। তার আউটের পরই ১৪.২ ওভারে বাংলাদেশ ১০০ রান পূর্ণ করে। ক্রিজে সাকিবের সঙ্গী মাহমুদউল্লাহ।

টানা তিন ছক্কার পর আউট তাওহীদ

হাসারাঙ্গাকে টানা তিন ছক্কা হাঁকিয়ে সাজঘরে ফিরলেন তাওহীদ। এক পাশে লিটন খেলছিলেন ধীরে। অন্য প্রান্তে তাওহীদ ব্যাট চালাচ্ছিলেন সজোরে। বাউন্ডারি-ওভার বাউন্ডারিতে রানের চাকা রাখছিলেন সচল। হাসারাঙ্গাকে ১২তম ওভারে টানা তিন ছক্কা হাঁকান। এরপর এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন সাজঘরে। ১টি চার ও চারটি ছক্কায় মাত্র ২০ বলে ৪০ রান করে তাওহীদ ম্যাচ নিয়ে আসেন বাংলাদেশের নাগালে। তার আউটে ভাঙে ৩৮ বলে ৬৩ রানের জুটি। ক্রিজে লিটনের সঙ্গী সাকিব।

লিটন-হৃদয়ে বাংলাদেশের প্রতিরোধ

দ্রুত ৩ উইকেট পতনের পর বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল যে কোনো মূল্যে একটি জুটি। লিটন-হৃদয় সেটি করার চেষ্টা করছেন চতুর্থ উইকেটের জুটিতে। দুজনে এখন পর্যন্ত যোগ করেন ২৮ বলে ৩৬ রান। লিটন ২৫ ও হৃদয় ২০ রানে ব্যাটিং করছেন।

তিন উইকেট হারিয়ে টালমাটাল বাংলাদেশ

শুরুতেই নেই দুই উইকেট। ক্রিজে এসে বেশিক্ষণ টিকতে পারলেন না অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও। থুসারার হাফ ভলির মতো বলটি ড্রাইভ করতে গিয়েছিলন, কিন্তু ঠিকঠাক করতে পারলেন না। কাভারে ধরা পড়েছেন। তাতে পাওয়ারপ্লেতেই বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলেছে ৩ উইকেট।

তানজিদের পর সৌম্যের বিদায়, চাপে বাংলাদেশ

সৌম্যর ধাক্কা সামলে ওঠা হয়নি। এবার বিদায় নিলেন আরেক ওপেনার তানজীদ। তুশারাকে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে চেয়েছিলেন, ব্যাটে বলে এক হয়নি, ইনসাইড এজ হন বাঁহাতি এই ওপেনার। ৬ বলে ৩ রান করেন তিনি। বাংলাদেশ ৬ রানে হারায় ২ উইকেট। ক্রিজে শান্তর সঙ্গী লিটন। দুজনের লম্বা জুটি ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

সৌম্যর শূন্য 

স্কোরবোর্ডে অল্প পুঁজ। শ্রীলঙ্কার প্রয়োজন শুরুতেই উইকেট। কাজটা সহজ করে দিয়েছেন সৌম্য সরকার। ধনাঞ্জয়াকে অহেতুক শট খেলতে গিয়ে মিড অনে ক্যাচ তুলে দেন। হাসারাঙ্গা ক্যাচ ধরেই মেতে ওঠেন বুনো উল্লাসে। শূন্য রানে বিদায় নেন সৌম্য, বাংলাদেশ ১ রানে হারায় প্রথম উইকেট। ক্রিজে তানজীদের সঙ্গী লিটন।

দুর্দান্ত কামব্যাকে শ্রীলঙ্কাকে ১২৪ রানে আটকালো বাংলাদেশ

টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৯ উইকেটে ১২৪ রানে থামলো শ্রীলঙ্কা। প্রথম ৬ ওভারে শ্রীলঙ্কার রান ২ উইকেটে ৫৩। পরের ১৪ ওভারে মাত্র ৭১! হারিয়েছে ৭ উইকেট। রিশাদের ঘূর্ণি জাদু, মোস্তাফিজ-তাসকিনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে দুর্দান্ত কামব্যাক করে বাংলাদেশ। ইনিংসের শুরুতে বাউন্ডারির পসরা সাজালেও মাঝে একটি বাউন্ডারির জন্য শ্রীলংকাকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ৪৩ বল! সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেন নিসাংকা। আর কোনো ব্যাটার কার্যকরী ইনিংস খেলতে পারেননি। রিশাদ-মোস্তাফিজ নেন ৩টি করে উইকেট। তাসকিন ২ ও তানজীম শেষ ওভারে নেন ১টি উইকেট।

রিশাদের ঘূর্ণি জাদুর পর তাসকিন-মোস্তাফিজের আঘাত

রিশাদের ঘূর্ণি জাদুর চাপ সামলে না উঠতে তাসকিনের আঘাত। দলীয় ১৮ ও নিজের শেষ ওভারের শেষ বলে শানাকাকে সাজঘরে ফেরান তাসকিন। কুইকারে খোঁচা দিয়ে বসেন শানাকা, বল চলে যায় উইকেটরক্ষকের হাতে। ৭ বলে ৩ রান করেন শানাকা। প্রথম ওভারে ১২ দেওয়া তাসকিন ৪ ওভারে দেন মাত্র ২৫! নেন ২ উইকেট। তাসকিনের পর নিজের শেষ ওভারে মোস্তাফিজ নেন আরও একটি উইকেট। থিকাশানাকে ফেরান দ্য ফিজ। ৪ ওভারে মাত্র ১৭ রান দিয়ে মোস্তাফিজ নেন ৩ উইকেট।

রিশাদের ঘূর্ণি জাদু

রিশাদের আরও একটি উইকেট। এবার দারুণ লেগব্রেকে ফেরালেন ধনাঞ্জয়াকে। ২৬ বলে ২১ রান করেন এই ব্যাটার। এর আগের ওভারে জোড়া উইকেট নিয়ে চেপে ধরেন, এবার ধনাঞ্জয়াকে আউট করে শ্রীলঙ্কার রানের চাকা কার্যত থামিয়ে দিলেন রিশাদ। ৪ ওভারে রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন এই লেগ স্পিনার। ক্রিজে ম্যাথুজের সঙ্গী শানাকা।

রিশাদের জোড়া উইকেট 

১৩ ওভারে শতরান পূর্ণ করে শ্রীলঙ্কা। ১৪তম ওভারের প্রথম বলে ব্রেক থ্রো এনে দেন রিশাদ। মারতে গিয়ে ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে ধরা পরেন আসালাঙ্কা। ২১ বলে ১৯ রান করেন তিনি। পরের বলেই ক্রিজে এসে স্লিপে খোঁচা দিয়ে শূন্য রানে ফেরেন হাসারাঙ্গা। পরপর ২ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার লাগাম টেনে ধরে বাংলাদেশ। ১৯ রান দিয়ে রিশাদ নেন ২ উইকেট। ক্রিজে ধনাঞ্জয়ার সঙ্গী ম্যাথুজ।

নিসাঙ্কাকে ফিরিয়ে লঙ্কা ঝড় থামালেন মোস্তাফিজ

নিসাঙ্কা একাই বাংলাদেশি বোলারদের ভীষণ চাপে রাখে। তার ঝড়ে পাওয়ার প্লেতে ২ উইকেট নিয়েও ব্যাকফুটে থাকে বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লে শেষ হলেও নিসাঙ্কা ঝড় চলতে থাকে। অবশেষে তাকে থামান মোস্তাফিজ। অফে অ্যাঙ্গেল করা বল ড্রাইভ করতে গিয়ে কাভারে ক্যাচ তুলে দেন নিসাঙ্কা। মাত্র ২৮ বলে ৪৭ রান করেন এই ব্যাটার। ইনিংসের নবম ওভারে নিসাঙ্কার আউটে স্বস্তি ফেরে বাংলাদেশ শিবিরে। মোস্তাফিজ ২ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। ক্রিজে ধনাঞ্জয়ার সঙ্গী আসালাঙ্কা।

পাওয়ার প্লে-তে লঙ্কা ঝড়

২ উইকেট নিলেও শ্রীলঙ্কার রানের চাকা থামাতে পারেনি বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লেতে দলটি ৫৩ রান নিয়েছে। বাংলাদেশি বোলারদের উপর একাই ছড়ি ঘুরিয়েছেন নিসাংকা। তিনি ১৮ বলে ৩৪ রান করেন এই সময়ে। বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে এলোমেলো ছিলেন সাকিব। তিনি ২ ওভারে ২৪ রান দেন। প্রায় অর্ধেক রান দেন সাকিব একাই। ১টি করে উইকেট নেন তাসকিন-মোস্তাফিজ।

প্রথম বলেই মোস্তাফিজের উইকেট 

আগের ওভারে চারটি বাউন্ডারি হজম করে এলোমেলো বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে বোলিংয়ে আসেন মোস্তাফিজ। অফের বল মারতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় করে মিড অফে ক্যাচ তুলে দেন কামিন্দু। ৫ বলে ৪ রান করেন তিনি। ক্রিজে নিসাঙ্কার সঙ্গী ধনাঞ্জয়া।

চার বাউন্ডারিতে সাকিবের ওভারে শ্রীলঙ্কার ১৬ রান

ইনিংসের পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে আসেন সাকিব। চারটি চারের মারে নিসাংকা ১৬ রান নেন। বাকি দুই বল ডট। দুই ওভারে ২৪ রান দেন অভিজ্ঞ এই বোলার।

টানা দুই চারের পর কুশলকে বোল্ড করে ফেরালেন তাসকিন

ইনিংসের তৃতীয় ওভারে টানা দুই চারের পর কুশলকে বোল্ড করে ফেরালেন তাসকিন। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে নিজের প্রথম ওভার করতে আসেন তাসকিন। প্রথম দুই বলে হজম করেন চার। ব্যাক অব লেন্থে করা তৃতীয় বলে দোটানায় থেকে বোল্ড হন কুশল। ৮ বলে ১০ রান করেন তিনি। ক্রিজে এসে পরের বলে আবার চার হাঁকান নতুন ব্যাটার কামিন্দু। তাসকিন প্রথম ওভারে ১২ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। ক্রিজে নিসাঙ্কার সঙ্গী কামিন্দু।

শুরুতে এলোমেলো ফিল্ডিং 

তানজীমকে ইনিংসের দ্বিতীয় বলে মিডউইকেটের উপর দিয়ে চার মেরে রানের খাতা খোলেন নিসাঙ্কা। এরপর এই ওভারে মাত্র ১ রান নিতে পারে দলটি। দ্বিতীয় ওভারে সাকিব আসেন বোলিংয়ে। কিন্তু বাংলাদেশ অতিরিক্ত রান দিয়ে বসে। তানজীম থ্রো করলে সেটি আটাকাতে পারেননি লিটন। বাংলাদেশ ১ রানের জায়গায় দেয় ৫ রান। ১ বল পরেই সৌম্য বল ধরতে গিয়েও ধরতে পারেননি।

মুখোমুখি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা 

গ্রুপ ডি থেকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হার দিয়ে শুরু করা শ্রীলঙ্কার এটি দ্বিতীয় ম্যাচ। যুক্তরাষ্ট্রের ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ছয়টায় ম্যাচটি শুরু হবে। এই ম্যাচে টস জিতে বাংলাদেশের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বাংলাদেশ  একাদশ

তানজিদ হাসান, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), তাওহীদ হৃদয়, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ, রিশাদ হোসেন, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান, তানজিম হাসান সাকিব।

নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক, বাংলাদেশ)

আমরা প্রথমে বোলিং করতে চাই. কারণ শুরুতে আমরা কিছুটা সীম ও সুইং আশা করি। বিশেষ করে এই ফরম্যাটে খুবই গুরুত্বপূর্ণ, গত কয়েক দিনে চার  টপ অর্ডার ব্যাটার অনেক পরিশ্রম করছে।

লিটনেই আস্থা 

জিম্বাবুয়ে সিরিজে বাজে পারফর্ম করার পরও লিটনকে বিশ্বকাপ দলে রাখায় প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল নির্বাচকদের। যুক্তরাষ্ট্রর বিপক্ষে সিরিজ কিংবা প্রস্তুতি ম্যাচ কোথাও ফর্মে ফেরার আভাস না দিলেও বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে জাকের আলী অনিকের পরিবর্তে লিটনে আস্থা রেখেছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

তাসকিন ফিরলেন, শরিফুল ছিটকে পড়লেন 

বিশ্বকাপ দল ঘোষণার আগে তাসকিনের ইনজুরি শংকা ঘিরে ধরেছিল বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টে। পিছিয়ে যায় দল ঘোষণা। দেশি-বিদেশি চিকিৎসকের পরামর্শে তাসকিনকে নেওয়া হয় দলে, বানানো হয় সহ অধিনায়ক। যুক্তরাষ্ট্র সিরিজ, দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ না খেলা তাসকিন নিজেকে প্রস্তুত করে প্রথম ম্যাচেই তুলবেন গতির ঝড়। অন্যদিকে ভারতের বিপক্ষে ১ জুন প্রস্তুতি ম্যাচে চোট পাওয়া শরিফুল ইসলাম ছিটকে পড়লেন প্রথম ম্যাচ থেকে। তাসকিনের সঙ্গী বাকি দুই পেসার হলেন তানজীম-মোস্তাফিজ।

শ্রীলঙ্কা একাদশ 

পাথুম নিসাঙ্কা, কুশল মেন্ডিস , কামিন্দু মেন্ডিস, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, চারিথ আসালাঙ্কা, ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গা (অধিনায়ক), অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, দাসুন শানাকা, মহেশ থিকশানা, নুয়ান থুশারা, মাথিশা পাথিরানা।

ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা (অধিনায়ক, শ্রীলঙ্কা)

প্রথমে ব্যাট করতে আমাদের আপত্তি নেই। আমরা দুজন সত্যিকারের ফাস্ট বোলার এবং দুইজন জেনুইন স্পিনার, দুজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার নিয়ে নামছি। ম্যাচের পরিস্থিতির ওপর এটা নির্ভর করে আমি কোথায় ব্যাট করতে নামব।

হেড টু হেড

বিশ্বকাপ বাদে এই ফরম্যাটে বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার রেকর্ড বেশ ভালো। ষোলোবারের দেখায় পাঁচ ম্যাচে তারা হেরেছে। বাকিগুলোতে এসেছে জয়। শেষ তিনবারের দেখায় দুইবারই জিতেছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশ জিতেছে একটিতে। তবে বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ কখনোই জিততে পারেনি। ২০২১ সালে সবশেষ দেখায় শ্রীলঙ্কা ৫ উইকেটে জয় পেয়েছিল। এর আগে টি-টোয়েন্টি মহাযজ্ঞে দুই দল মুখোমুখি হয়েছিল ২০০৭ সালে, প্রথম আসরে। সেবার ৬৪ রানে জয় পায় সিংহের দল।

সবার শেষে বাংলাদেশ

বিশ দলের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সবশেষ দল হিসেবে বাংলাদেশের বিশ্বকাপের মিশন শুরু হচ্ছে আজ। বাংলাদেশের খেলা শুরুর হওয়ার এক ঘণ্টা আগে মাঠে নামে নিউ জিল্যান্ড।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..