1. nasiralam4998@gmail.com : admi2017 :
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

গোপালগঞ্জে দুর্বৃত্তদের হামলায় বাবা ও ছেলে আহত

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪২ বার

গোপালগঞ্জে দুর্বৃত্তদের ছোড়া বিস্ফোরক জাতীয় দ্রব্যের বিস্ফোরণে মাসুদ শেখ (৪৫) ও তার ছেলে আব্দুল রাশেদ শেখ (৪) আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রাতে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নের ঘোষেরচর উত্তরপাড়া গ্রামে হামলাটি হয়। ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লুৎফুল কবির চন্দনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

আহত মাসুদ শেখ একই গ্রামের মন্টু শেখের ছেলে। তিনি গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা প্রহরীর চাকরি করেন।

আহত মাসুদ শেখের ভাবি ফরিদা বেগম বলেন, রাতে আমরা ঘরে ভাত খাচ্ছিলাম। এসময় লোডশেডিং হয়। তখন বিকট শব্দ শুনে ঘর থেকে দৌঁড়ে বাইরে যায়। দেখি মাসুদ শেখ ও তার ছেলে রক্তাত অবস্থায় রাস্তার ওপর পড়ে আছে। একটু পাশে তার মোটরসাইকেল পড়ে আছে। মোটরসাইকেলটি থেকেও ধোঁয়া বের হচ্ছিল। ঘরের দরজায় বড় ছিদ্র হয়েছে। কে বা কারা ঘটনাটি ঘটিয়েছে তাদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই।

গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক গাজী মো. আশিকুজ্জামান বলেন, রাত সাড়ে ৯টার দিকে জরুরি বিভাগে মাসুদ শেখ ও তার ছেলে আব্দুল রাশেদকে নিয়ে আসা হয়। মাসুদ শেখের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়েছে। বাম পায়ের লিগামেন্ট ছিঁড়ে গেছে ও হাড় কেটে গেছে। পেটে বড় ইনজুরি রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, মাসুদ শেখের শরীরের ৩০ শতাংশ ও ছেলের শরীরের ২৭ শতাংশ পুড়ে গেছে। মাসুদ শেখের অবস্থা আশংকাজনক। তবে, ছেলে আব্দুল রাশেদ শঙ্কামুক্ত। তাদের দুই জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনিচুর রহমান বলেন, মাসুদ শেখ গতকাল রাত ৯টার দিকে ছেলেকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে জেলা শহর থেকে বাড়িতে আসেন। এসময় দুর্বৃত্তরা মাসুদ শেখকে লক্ষ্য করে শক্তিশালী বিস্ফোরক দ্রব্য নিক্ষেপ করে। এতে বাবা-ছেলে দুই জনই গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

তিনি আরও বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লুৎফুল কবির চন্দন স্যারসহ আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। গোপালগঞ্জ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন টিম কাজ করছে। আমরা তদন্ত শুরু করেছি। দুর্বৃত্তদের খুঁজে বের করার চেষ্টা হচ্ছে। তদন্ত শেষে হামলার প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..