1. nasiralam4998@gmail.com : admi2017 :
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং শিক্ষকদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের তীব্র সমালোচনা করেলেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২২
  • ১২৪ বার
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং শিক্ষকদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের তীব্র সমালোচনা করেলেন মাহামান্য রাষ্ট্রপতি
ছবিঃ সংগৃহীত (প্রথম আলো)

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং শিক্ষকদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের তীব্র সমালোচনা করে রাষ্ট্রপতি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আচার্য মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, উপাচার্য ও শিক্ষকদের কর্মকাণ্ডে সমাজে শিক্ষকদের সম্মানের জায়গা ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে। বিভিন্ন উপায়ে প্রশাসনিক ও আর্থিক সুযোগ-সুবিধা নেয়াই যেন কিছু উপাচার্যের মূল দায়িত্বে পরিণত হয়েছে। অনেক শিক্ষকও বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিকে ঐচ্ছিক দায়িত্ব মনে করেন।

শনিবার (১৯ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ৫৩তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

শিক্ষক নিয়োগসহ যে কোনো নিয়োগে স্বচ্ছতা বজায় রাখার নির্দেশ দিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, উপাচার্যদের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। পরিবার ও অনুগতদের চাকরি দেয়াই যেন কিছু উপাচার্যের কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, যুগের সঙ্গে আধুনিকতা ও প্রযুক্তির ছোঁয়ায় জীবনযাত্রা গতিশীল হলেও, গবেষণায় আমরা অনেক পিছিয়ে রয়েছি। একসময় প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশেষ মর্যাদার চোখে দেখা হত, তবে সময়ের বিবর্তনে সেই ঐতিহ্য সংকুচিত হয়ে আসছে।

ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান তার বক্তব্যে বলেন, অসাম্প্রদায়িক এবং মানবিক হয়ে বর্তমান এবং আগামীর যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নিজেদের প্রস্তুত করতে হবে।

এসময় তিনি শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে, যথাযথ জ্ঞান ও তথ্য অর্জনে দেশের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে আহ্বান জানান।

এর আগে বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে চ্যান্সেলরের শোভাযাত্রায় যোগ দেন রাষ্ট্রপতি।

পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ, নৃত্য এবং সংগীতের পর শুরু হয় সমাবর্তনের মূল আনুষ্ঠানিকতা। সমাবর্তন বক্তা ড. জঁ তিরলের বক্তব্যের পরেই বক্তব্য দেন ঢাবি আচার্য। অনুষ্ঠানে ড. জঁ তিরলকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দেয়া হয়।

এবছর ৩০ হাজার ৩৪৮ জন স্নাতক ও গবেষকের অংশগ্রহণে ৫৩তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ঢাকা কলেজ ও ইডেন মহিলা কলেজ- দুটি ভেন্যু থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাবি অধিভুক্ত সাতটি কলেজও সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেন্যুতে মোট ২২ হাজার ২৮৭ জন শিক্ষার্থী এবং ঢাকা কলেজ ও ইডেন কলেজ ভেন্যুতে প্রায় ৭ হাজার ৭৯৬ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

মোট ১৩১ জন মেধাবী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীকে ১৫৩টি স্বর্ণপদক, ৯৭টি পিএইচডি, ২টি ডিবিএ এবং ৩৫টি এমফিল ডিগ্রি দেয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..