1. nasiralam4998@gmail.com : admi2017 :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৩২ অপরাহ্ন

বরগুনায় মাটি খুঁড়ে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ২০৩ বার
মাটি খুঁড়ে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার
ফাইল ফটো

অনলাইন ডেস্ক: বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলায় নিখোঁজের তিনদিন পর প্রতিবেশীর ৯৯৯-এর এক কল পেয়ে পুলিশ মা ও মেয়ের মাটি চাপা দেওয়া লাশ উদ্ধার করেছে। উপজেলার পূর্ব হাতেমপুর এলাকার বাগানের একটি গর্ত থেকে মা-মেয়ের এ মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী পলাতক রয়েছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শাশুড়ি, দেবরসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল শনিবার (৩ জুলাই) সকালে তাদের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাসার এ তথ‌্য নিশ্চিত করেন।

নিহতরা হলেন- পাথরঘাটা উপজেলার হাতিরমপুর এলাকার রিপন বাদশার মেয়ে সুমাইয়া আক্তার (১৮) এবং সুমাইয়ার ৯ মাসের মেয়ে সামিয়া আক্তার জুঁই।

বরগুনা পাথরঘাটার পূর্ব হাতেমপুর গ্রামের ছত্তার প্যাদা বলেন, শনিবার সকালে বাড়ির পিছনে যাবার সময় মাটির এক অংশ খোঁড়া দেখে সন্দেহ হয়। এরপর আমি স্থানীয়দের নিয়ে মাটি সরিয়ে রক্ত দেখতে পেয়ে ৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশকে জানাই। এরপরে পুলিশ এসে মাটি খুঁড়ে লাশ উদ্ধার করে।

নিহত সুমাইয়ার চাচাতো ভাই জসিম উদ্দিন বলেন, সুমাইয়ার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল একই এলাকার খলিলের ছেলে শাহিনের। শাহিন মাদকাসক্ত হওয়ায় তারা রাজি হয়নি। পরে সুমাইয়া ও শাহিন শারীরিক মেলামেশায় জড়িয়ে পরলে গর্ভবতী হয় সুমাইয়া। এরপর সুমাইয়ার বাবা শাহিনকে বিয়ের জন্য বললে শাহিন বিয়েতে রাজি হয়নি। এই ঘটনায় সুমাইয়ার বাবা একটি মামলা দায়ের করেন। শাহিন সেই মামলায় ৬ মাস কারাগারে ছিল। এরই মধ্যে সুমাইয়া মেয়ে শিশুর জন্ম দেয়। এরপর শাহিন বিয়েতে রাজি হলে শাহিনের জামিন করিয়ে মামলা তুলে নেন সুমাইয়ার বাবা। জেল থেকে বের হয়ে ওই শিশুসহ সুমাইয়াকে বিয়ে করে শাহিন। এরপর থেকেই সুমাইয়াকে মারধর করত তার স্বামী শাহিন ও তার মা সাহিনুর (৪২)।

তিনি আরও বলেন, গত তিন দিন ধরে নিখোঁজ ছিল সুমাইয়া। বিভিন্ন জায়গায় খুঁজেও কোনো সন্ধান পায়নি তার পরিবার। আজ সকালে ছত্তার গাজী পুলিশকে ফোন করলে তারা মা মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি আবুল বাসার জানান, ৯ মাসের শিশু সামিরা আক্তার জুঁই ও তার মা সুমাইয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সুমাইয়ার শাশুড়ি সাহিনুর, মামাতো ভাই ইমাম (২২) সাহিনের দাদী জুবেদাকে (৯৫) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তবে সুমাইয়ার স্বামীকে পাওয়া যায়নি। সে পলাতক আছে।

মরদেহের সুরতহাল করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

দর্শনা নিউজ 24/এইচ জেড

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..